Friday, November 23, 2018

AL-led 14-party alliance urges EC not to reshuffle admin

The Awami League-led 14-party alliance on Friday urged the election commission not to make any reshuffle in the civil and police administrations without any specific allegation, reports UNB.

“It’s the absolute jurisdiction of the election commission. But we urged the commission not to make any reshuffle as per BNP’s will without any specific allegation,” said Samyabadi Dal general secretary Dilip Barua.

He was talking to reporters after a 12-member delegation of the ruling alliance, led by him, held a meeting with the EC at the Nirbachan Bhaban in the afternoon.

Dilip Barua alleged that BNP and Jatiya Oikkya Front were trying to make the upcoming national election questionable.

“BNP and Jatiya Oikya Front is trying to kill two birds with one stone. They’re preparing for the election on one hand and trying to destroy the morale of those concerned on the other through making imaginary and baseless allegations against the election commission and the administration so that they can’t arrange a fair and peaceful election,” Barua said.

He said BNP has constantly been making speeches violating the electoral code of conduct.

“Although Oikya Front chief Kamal Hossain is a lawyer, he is saying nothing in this regard. The demands which BNP raised are motivated and they want to make the election questionable,” he added.

Samyabadi Dal leader alleged that BNP and Oikya Front want to implement their secret agenda of destroying the election atmosphere.

He urged the commission to ensure that there is no torture on minority communities before and after the election and that they can cast their votes without any hindrance.

Source: https://en.prothomalo.com/bangladesh/news/186918/AL-led-14-party-urges-EC-not-to-reshuffle-admin

Friday, November 16, 2018

Trump 'personally answers Mueller Russia questions'


Donald Trump says he has finished answering questions into alleged Russian meddling during the 2016 presidential campaign.

The US leader told reporters he had personally answered the questions "very easily", but that they had yet to be submitted to Robert Mueller's team.
Mr. Mueller has been looking into allegations of collusion between Mr. Trump's campaign and Russia since 2017.
Mr. Trump strongly denies any collusion, calling the probe "a witch hunt".
 Speaking to reporters on Friday, he said the investigation had wasted "millions and millions of dollars" and "should never have taken place".
Mr. Trump also suggested the people who wrote the questions he agreed to answer "probably have bad intentions".
"I'm sure they're tricked-up because, you know, they like to catch people," Mr. Trump said, after making it clear he had written the answers to the questions.
"My lawyers don't write answers. I write answers," he said. "I was asked a series of questions. I've answered them very easily."


What is behind the Russia investigation?

In 2016, US intelligence agencies concluded that Russia had used a state-authorized campaign of cyber attacks and fake news stories planted on social media in an attempt to turn the election against Democrat candidate Hillary Clinton.
A team of investigators led by Mr. Mueller is looking into whether anyone from Mr. Trump's campaign colluded in the effort.
It has been established that senior members of Mr. Trump's team met Russian officials and that several of these meetings were not initially disclosed.

The president's son, Donald Trump Jr, met a Russian lawyer during the campaign who was said to have "dirt" on Mrs. Clinton, and former adviser George Papadopoulos has admitted lying to the FBI about meetings with alleged go-betweens for Russia.
Four people connected with Mr. Trump's campaign and the presidency - campaign chairman Paul Manafort, advisers Rick Gates and George Papadopoulos, as well as former national security adviser Michael Flynn - have been charged and further indictments could be issued.
However, the US president denies any wrongdoing and no solid evidence has emerged to implicate him.

শীতের আগমনে লেপ-তোষক তৈরীতে ব্যস্ত কারিগর ॥ ব্যবসা ভালো হাওয়ার সম্ভাবনা


 কুষ্টিয়া সহ সারাদেশে শুরু হয়েছে শীত। গত বছরের তুলনায় এবার শীত বেশী পড়বে বলেও অনেকেই মন্তব্য করেন। এরই মধ্যে শীত শুরুর সাথে সাথে লেপ-তোষক তৈরিতে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন কারিগররা। বাজারে কম্বলের তুলনায় লেপের দাম কম থাকায় চাহিদা থাকে বেশি। তাই শীত আসার আগেই পর্যাপ্ত পরিমাণে লেপ তৈরি করে ষ্টক করে রেখেছেন বলেও অনেক কারিগর এবং ব্যবসায়ীরা জানান। একটি ভালো কম্বলের চেয়ে লেপ এর দাম অনেক কম হওয়া এবং কম্বলের চেয়ে লেপ দ্রুত শীত নিবারনে পারদর্শী, যার ফলে শীতের সময় লেপ এর চাহিদা বেশী থাকে। এ বিষয়ে কুষ্টিয়া হাইস্কুলের গলিতে অবস্থিত কারিগর মো: জুয়েল বলেন, গত কয়েক বছরের তুলনায় এবার মনে হচ্ছে শীত বেশী পড়বে তাই আমরা বেশকিছু লেড তৈরী করে ষ্টক করে রেখেছি। কারন শীতের প্রথম দিকে ক্রেতাদের আগমন বেশী ঘটে। তাই আমরা ক্রেতাদের চাহিদা পুরন করার লক্ষ্যে এ বছর বেশ কিছু লেপ-তোষক তৈরী করে গুদাম জাত করে রেখেছি। তবে গত কয়েক বছরের তুলনায় এবার ব্যবসা ভালো হবে বলে তিনি মত প্রকাশ করেন।
ব্যবসায়ীরা জানান, সারা বছরের মধ্যে এ শীত মৌসুমেই তারা কাজের বেশি অর্ডার পান। ফলে এ সময় তাদের কাজ বেশি করতে হয় শীতের তীব্রতা বাড়লে লেপ-তোষক তৈরি ও বিক্রি হয় বেশি। দোকানের কারিগররা এখন খুবই কর্মব্যস্ত।
এছাড়াও কুষ্টিয়ার বড় বাজার, আড়–য়াপাড়া, লাহিনী বটতলা, চৌড়হাস, মোল্লাতেঘরিয়া সহ বিভিন্ন এলাকায় সরেজমিন ঘুরে দেখা যায় একই অবস্থা। অধিকাংশ কারিগর প্রচন্ড ব্যস্ত, ২/৩ জন কারিগর কাজের চাপে সংবাদকর্মীদের সাথে এখন সময় দিতে পারবেন না বলেও তিনি এবং অত্যন্ত সম্মানের সাথে পরবর্তীতে আসার কথা বলেন। অত্র এলাকার ব্যবসায়ী বা দোকান মালিকরাও একই ভাবে বলেন, ভাই এবার আমাদের ব্যবসা ভালো হবে বলে আশা করছি। তবে বেশকিছু দিন ধরে শিমুল তুলার দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। যার ফলে আমাদের লাভ আগের তুলনায় খুব কম হয়। এ ব্যবসায়ীরা তুলার দাম কমানোর দাবী জানান।

Wednesday, November 14, 2018

কুষ্টিয়া অপহরণের ২ দিন পর শিশু সাকিবের লাশ উদ্ধাররের ঘটনায় আটক- ২




কুষ্টিয়া, ১৪ নভেম্বর, ২০১৮ ।। কুষ্টিয়া ইবি থানার ঝাউদিয়া ইউনিয়নের আস্তানগর গ্রামের অপহরণ হওয়ায় ২ দিন পর গতকাল সকাল ৯টায় শিশু সাকিব(২) এর লাশ পাওয়া গেল বাড়ি থেকে প্রায় আধাকিলোমিটার দুরের একটি ডোবায়। সহকারী পুলিশ সুপার ইয়াকুব হোসেনের নেতৃত্বে ইবি থানার অফিসার ইনচার্জ রতন শেখ নিজে ডোবায় নেমে লাশ উদ্ধার করে নিয়ে আসে।
এই ঘটনায় হাজারো জনতা ডবার পাশে ভিড় জমায়। পরে পুলিশ লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। এই ঘটনায় প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য জালাল ও আফরোজা নামের ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ। ইবি থানার অফিসার ইনচার্জ রতন শেখ জানান, আমরা সকালে সংবাদ পেয়ে আস্তানগর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশের জলাশয় থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করি। এই জলাশয়টি শিশুর বাড়ি থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে শিশুটিকে হত্যা করা হয়েছে। এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিহত শিশু সাকিবের পিতা বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন।


জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ২ জনকে আটক করা হয়েছে। এ ব্যাপারে নিহত সাকিবের বাবা মনিরুল ইসলাম জানান, আমার ছেলে সাকিব অসুস্থ হলে আমি ও আমার স্ত্রী তাকে নিয়ে চিকিৎসার জন্য রাজশাহী যায়। তখন আমার চাচাত ভাই মৃত হোসেন মুন্সীর ছেলে সামাদ(৩৫) আমার ঘরের টিনের বেড়া শাবল দিয়ে ভেঙ্গে ঘরে থাকা নগদ ৬ হাজার টাকা ও ২৬ আনি ওজনের ঝুমকা ও বাবুর ২টি স্বর্ণের চেন চুরি করে নিয়ে যায়। এব্যাপারে আমার সমাজ প্রধান হানিফ মুন্সীর কাছে বিচার দিলে হানিফ মুন্সী ও লাল্টু মুন্সী বিষয়টি ধামা চাপা দেই। পরে এক পর্যায়ে লাল্টু মুন্সীর নির্দেশে সালিশি বৈঠকে ঘাতক সামাদ ৭০ হাজার টাকা জরিমানা দিতে রাজি হয়। এরপরের দিন আমার ছেলে সাকিবকে আর খুজে পাওয়া যায়না।

পরে জানতে পারি ঘাতক সামাদ ও তার ভাই হাফিজুলের মেয়ে আফরোজা (১৮) আমার ছেলেকে নিয়ে ঘাতক সামাদের মামা জালালের বাড়িতে দিয়ে আসে। এরপর এই পুকুরে আমার ছেলের লাশ পাই। হাফিজুল আমাকে হুমকি দিয়ে বলে ঘটনা সত্যি না হলে তোকে ৫ লক্ষ টাকা জরিমানা দেওয়া লাগবে। আরো জানায়, হানিফ মুন্সী, লাল্টু মুন্সী, সামাদ ও তার ভাই হাফিজুল মেয়ে আফরোজা, হাতিয়া গ্রামের তিজা কসাই ও জালাল এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। তিজা কসাই আমার ছেলেকে ফেরত দেবে বলে আমার নিকট থেকে ১০ হাজার টাকাও নিয়েছে। জানা যায়, গত রবিবার সকাল ৯ টায় শিশুটি অপহরণ হয়। শিশুটির নাম সাকিব (২)। সাকিব কুষ্টিয়া ইবি থানাধীন ঝাউদিয়া ইউনিয়ন আস্তানগর গ্রামের মনিরুল ইসলামের ছেলে। এরপর থেকেই শিশুটিকে সব স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। গতকাল মঙ্গলবার সকালে শিশুটির লাশ বাড়ি থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দুরে ডোবায় কচুরিপানার মধ্যে ভাসতে দেখে আশরাফ নামে এক ব্যক্তি। এ ব্যাপারে নিহত শিশু সাকিবের বাবা, মা সঠিক বিচারের আশায় কুষ্টিয়া পুলিশ সুপারের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Tuesday, November 13, 2018

“ডোম না পেয়ে ওসি নিজেই ডোবায় নেমে লিশুর লাশ তুললেন”




কুষ্টিয়ায়   দুই   বছরের   শিশু   সাকিবের   লাশ   মিলল   পুকুরের  কচুরিপানার   মধ্যে।

বাদশা আলমগীর : কুষ্টিয়া ইবি থানার ঝাউদিয়া আস্তানগর গ্রামের হারিয়ে যাওয়া দুই বছরের সেই শিশুটির লাশ মিলল পার্শ্ববর্তী ডুবার কচুরিপানার মধ্যে। জানা যায়, গত রবিবার সকাল ৯ টায় শিশুটি বাড়ি থেকে খেলা করতে করতে হারিয়ে যায়। শিশুটির নাম সাকিব (২)। সাকিব
কুষ্টিয়া ইবি থানাধীন ঝাউদিয়া ইউনিয়ন আস্তানগর গ্রামের মনিরুল ইসলামের ছেলে। হারিয়ে যাওয়ার পর থেকেই শিশুটিকে সব স্থানে খোঁজাখুঁজির পরেও পাওয়া যায়নি। আজ মঙ্গলবার সকালে শিশুটির লাশ বাড়ির পাশের ডোবায় কচুরিপানার মধ্যে ভাসতে দেখে স্থানীয়রা। আরো পড়ুনঃ-
এরপর থানায় জানানো হয়, ইবি থানার ওসি রতন শেখ ঘাটনা স্থানে আসলে পরিস্থিতি ভয়াভহ হয়ায় তিনি,সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মিরপুর সার্রকেল ইয়াকুব হোসেনকে জানায়,তিনি সরজমিনে আসেন,এসে মৃত দেহ উদ্ধার করে।এলাকা চরম উত্তেজনায় ফুসে উঠেছে।
এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশ শিশুটির মৃতদেহটি উদ্ধারের পর সুরৎহাল প্রস্তুত করে ময়না তদন্তের জন্য কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।
বিঃদ্রঃ-ওসি মৃত দেহটি ডুবায় নেমে নিজেই উপরে তোলেন।এ ব্যাপারে এলাকাবাসী ইবি থানার ওসি রতন শেখ এর লাশ তোলার বিষয়টি অবাক হন।যে কাজটি ডোমের করার কথা সেই কাজটি নিজে করে আবারো প্রমান করলেন ওসি রতন শেখ ইবি থানার রত্ন।

কুষ্টিয়া দহকুলা তরিকুলের বিকাশের দোকানে প্রতারণা!


অতঃপর স্কুল শিক্ষিকা টাকা ফেরত পেলেন

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার আলামপুর ইউনিয়নের দহকোলা বাজারের তরিকুলের বিকাশ এজেন্ট দোকানে বিকাশ লেনদেনে প্রতারণার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অতঃপর স্থানীয় পুলিশ ও ইউপি চেয়ারম্যানের সহয়তায় স্কুল শিক্ষিকা সুমাইয়া খাতুন তার বেতনের ১৬৫০০ টাকা ফেরত পেয়েছেন। 

ঘটনা সূত্রে জানা যায়, দহকোলা ঘোরাপাড়া ফজলের মেয়ে সুমাইয়া খাতুন ঘোরাপাড়া আনন্দস্কুলের শিক্ষিকা। তার মাসিক বেতন আসে তরিকুলের বিকাশ এজেন্ট নাম্বারে। গত ৩ মাস টাকা না উত্তোলন করায় শিক্ষিকা সুমাইয়ার মোট বেতনের টাকা হয় ১৬৫০০ টাকা। সুমাইয়া গত ১১ই নভেম্বর তরিকুলের বিকাশের দোকানে ওই শিক্ষিকা বেতনের টাকা উত্তোলন করতে যায়। 

সে সময় তরিকুল জানায় তার এজেন্ট নাম্বারে সুমাইয়া খাতুনের কোন টাকা আসেনি। সুমাইয়া খাতুন তাকে চ্যালেঞ্জ করে অফিসে ফোন দিয়ে জানতে পারে তার বেতনের টাকা তরিকুলের এজেন্ট নাম্বারে দেওয়া হয়েছে। এরপর তরিকুল ওই শিক্ষিকাকে অকাথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং হুমকি ধামকি দেই। শেষে ওই শিক্ষিকা উপায়ান্তর না পেয়ে স্থানীয় পুলিশ ক্যাম্পে লিখিত অভিযোগ দেই। 

এসময় পুলিশ ক্যাম্পের এস আই লিটন জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দহকোলা বাজারে তরিকুল স্টোর থেকে তরিকুলকে দহকোলা পুলিশ ক্যাম্পে নিয়ে আসে। এ ব্যাপারে দহকোলা ক্যাম্পের এস আই লিটনের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, তরিকুলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ক্যাম্পে নিয়ে আসা হয়েছিল। 

ওসি স্যারের নির্দেশে আলামপুর ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজ উদ্দিন শেখের কাছে দেওয়া হয়েছে। এব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজ উদ্দিন শেখ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, সুমাইয়ার ১৬৫০০ টাকা তরিকুলের নিকট থেকে দিয়ে দেওয়া হয়েছে। এই ঘটনায় তরিকুলের সঠিক বিচার না হওয়ায় এলাকাবাসী ক্ষোভে ফুসে উঠেছে এবং সঠিক বিচারের জন্য কুষ্টিয়া পুলিশ সুপারের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। উল্লেখ্য, এলাকাবাসী জানান, সাম্প্রতী আইলচারা গ্রামের এক যুবকের কাছ থেকেও টাকা লেনদেনে নয় ছয় করেছে। পরে ওই যুবককে আটকে রেখে টাকা আদায় করেছে। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত তরিকুলের ০১৭১৯-৩০৪৮৬১ নাম্বারে কল দিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন ওসি স্যারের সাথে কথা হয়েছে।

Saturday, November 10, 2018

ঝিনাইদহ সদর থানা পুলিশের মাদক বিরোধী র‌্যালি ও মহড়া

চঞ্চল মাহমুদ ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ“চলো যাই যুদ্ধে মাদকের বিরুদ্ধে” এই স্লোগানে সামনে রেখে ঝিনাইদহে মাদক বিরোধী র‌্যালি ও মহড়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার বিকেলে সদর থানার আয়োজনে এ মহড়া অনুষ্ঠিত হয়। ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিলু মিয়া বিশ্বাস, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) কনক কুমার দাস, সদর থানার ওসি এমদাদুল হক শেখ এর নেতৃত্বে থানা চত্বর থেকে মোটর সাইকেল র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি শহরের ব্যাপারীপাড়া, আরাপপুর, কালিকাপুর, চুয়াডাঙ্গা স্ট্যান্ড, বাস টার্মিনাল, বাইপাসসহ বিভিন্ন স্থান প্রদক্ষিণ করে। র‌্যালিতে সদর থানায় কর্মরত পুলিশ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
এসময় ওসি এমদাদুল হক জানান, মাদক সেবনকারী ও ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে ঝিনাইদ জেলা পুলিশ। মাদক নিয়ন্ত্রণ করতে প্রতিদিন চালানো হচ্ছে ঝটিকা অভিযান। যার অংশ হিসেবে শনিবার মোটরসাইকেল মহড়া প্রদর্শন করা হয়। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।